মেয়র আইভীর বিরুদ্ধে মামলা, জানা গেল আসল কারণ

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে। মামলায় বাড়ি দখলের চেষ্টার অভিযোগ আনা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জের যুগ্ম জেলা জজ প্রথম আদালতের বিচারক মাসুদ জামানের আদালতে মামলাটি করেন প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা মুক্তিযোদ্ধা এম শহীদুল্লাহর পক্ষে তার মেজ ছেলে অ্যাডভোকেট শাহ আলম কবীর।

শুনানি শেষে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী ও কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল আমিনকে এ বিষয়ে ৭ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছেন আদালত।

পাশাপাশি সিটি করপোরেশনের উচ্ছেদ কার্যক্রমের উপর ৩০ দিনের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামলার বাদি শাহ আলম কবীরের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবু সাঈদ খান সবুজ।

মামলা বাদি অ্যাড. শাহ আলম কবীর জানান, ১৯৮১ তার বাবা মো. শহীদুল্লাহ ও মা দেলোয়ারা বেগম নগরীর পাইপকপাড়া এলাকায় ৬ শতাংশ জমি ক্রয় করেন। ৮৩ সালে নারায়ণগঞ্জ পৌরসভা (বিলুপ্ত) ওই এলাকায়

যৌথভাবে মাপঝোক করে তাদের জমি বুঝিয়ে দেন। ২০০৩ সালে পৌরসভা ওই জমির দক্ষিণপাশে থাকা পৌরসভার জমি বালু দিয়ে ভরাট করে। এরপর তারাও তাদের জমিতে বাড়ি নির্মাণ করেন। কিছুদিন ধরে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের লোকজন এসে দাবি করছে যে, তারা সিটি কর্পোরেশনের জমি চারপাশ থেকে ১০-১৫ ফুট করে প্রায় ২ শতাংশ জমি দখল করেছেন।

শাহ আলম কবীর বলেন, আমরা সিটি কর্পোরেশনকে বলেছি তারা যেন জমি মাপঝোক করে দেখেন। কিন্তু তারা সেটি না করে জোরপূর্বক আমাদের জমি দখলের উদ্যোগ নেয়। আমরা অসহায় হয়ে আদালতের শরণাপন্ন হয়েছি। এ বিষয়ে জানতে নাসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল আমিনকে ফোন করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

পরে তার ফোনে ক্ষুদে বার্তা পাঠিয়ে মামলার বিষয়ে বক্তব্য চাইলেও তিনি কোনো উত্তর দেননি। পাশাপাশি বিষয়টি নিয়ে সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর সঙ্গে গণমাধ্যম কর্মীরা যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তার সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.