কাতার প্রবাসীর বাড়িতে স্ত্রীর মর্যাদার দাবিতে ৩৫ বছরের নারীর অবস্থান (ভিডিও সহ)

স্ত্রীর মর্যাদা এবং পাওনা টাকার দাবীতে ময়মনসিংহ’র মুক্তাগাছা উপজেলার রসুলপুর কাঠালিয়া রাজাবাড়ি গ্রামের মজনু মিয়ার মেয়ে

মারজানা আক্তার লিপি (৩৫), কুমিল্লার তিতাস উপজেলা ভিটিকান্দি ইউনিয়নের মানিক কান্দি গ্রামের মৃত ধনু ভূইয়ার ছেলে কাতার প্রবাসী

আঃ লতিফ ভূঁইয়া (৪৫) এর স্ত্রী পরিচয় দিয়ে ১৫ লক্ষ ৩৭ হাজার টাকার পাওনা দাবী করেন তার বাবা মজনু মিয়া ও চাচা দুলাল মিয়াকে নিয়ে শনিবার বিকেলে উপজেলার মানিককান্দি গ্রামের কাতার প্রবাসী লতিফ ভূঁইয়ার বাড়িতে আসেন।

প্রবাসী লতিফ ভূঁইয়ার দ্বিতীয় স্ত্রী আসছে এমন খবর শুনে কৌতুহলে পাড়াপ্রতিবেশি’র নারীরা দেখতে ভীর করেন, বিষয়টি গণমাধ্যম কর্মী জানতে পেয়ে

ঘটনাস্থলে গিয়ে মারজানা আক্তার লিপির নিকট জানতে চাইলে তিনি জানান, প্রবাসী লতিফের সাথে আমার বিয়ে হয় ২০২০ সালের ১৩ নভেম্বর। বিয়ের পর লতিফ আমাদের গ্রামের বাড়িতে

আসা যাওয়ার সুবাদে আমার স্বজনদের কাতার নেওয়ার কথা বলে ১৫ লক্ষ টাকা নিয়ে লতিফ নিজেই কাতার চলে এবং আমার সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। আজ আমি এসেছি আমার পাওনা টাকার জন্য এবং স্ত্রীর মর্যাদা আদায় করতে।

এবিষয়ে কাতার প্রবাসী লতিফ ভূইয়া ইমুতে ফোন দিয়ে সাংবাদিকদের সাথে তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি তাকে চিনি না। সে আমাকে সামাজিকভাবে হেও করার জন্য একটা মহলের ইশারায় এখানে এসেছে।

আমি খুব দ্রুত সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিচার চাইবো। বিয়ের সাক্ষী মো. ইব্রাহীম বলেন, লতিফ গাজীপুর কাজী অফিসে গিয়ে বিয়ে করেছে,আমি এই মেয়েকে চিনি এবং তাদের বিয়ের পর লতিফের সাথে লিপিদের বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছি, তবে টাকার বিষয়ে আমি কিছুই জানিনা। ভিটিকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান বাবুল আহম্মেদ বলেন, ভিকটিম আমাকে কিছুই জানায়নি,তবে বিভিন্ন মাধ্যম এবং ভিট পুলিশের মাধ্যমে আমি বিষয়টি জেনেছি।ভিকটিম যদি বিষয়টি আমাকে লিখিতভাবে জানায় তাহলে তদন্ত সাপেক্ষে সমাধান করার চেষ্টা করবো।

ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.