জনগণ সঠিকভাবে চাইলে ওরা দিতে বাধ্য

জনসাধারণের জানার অধিকার, প্রত্যেক নাগরিকের তথ্য পাওয়ার অধিকার—এই ধারণাগুলো বাংলাদেশে খুব পুরোনো নয়। শুধু বাংলাদেশে কেন,

পুরো দক্ষিণ এশিয়াতেই এসব ধারণা বেশ নতুন। সাধারণ মানুষের মনেও এমন বোধ দৃঢ়ভাবে গড়ে ওঠেনি যে জনসাধারণের স্বার্থের সঙ্গে সম্পর্কিত সব ধরনের তথ্য জানার অধিকার প্রত্যেক নাগরিকের রয়েছে।

ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক নেতা, রাষ্ট্র পরিচালনার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা ও সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে তথ্য গোপন রাখার প্রবণতা এখনো প্রবল। তবে জনগণ সঠিকভাবে তথ্য চাইলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা

সেই তথ্য দিতে বাধ্য থাকবেন। কারণ তথ্য পাওয়া জনগণের নাগরিক অধিকার। জনগণ সঠিকভাবে তথ্য চাইলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা সেই তথ্য দিতে বাধ্য থাকবেন। এ কথা বলেছেন সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী মো. আশরাফ আলী খান খসরু।

বুধবার (২৯ জুন) সমাজসেবা অধিদপ্তরে ‘তথ্য অধিকার আইন ও বিধিবিধান সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধিকরণ’ শীর্ষক এক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, জনগণের তথ্য জানার অধিকার রয়েছে। এক্ষেত্রে নিয়ম অনুযায়ী তাকে আবেদন করতে হবে। তবে অনেক সময় কিছু কর্মকর্তার না জানায় কারণে জনগণ সঠিক তথ্য পায়না। এ জন্য তথ্য অধিকার কর্মকর্তাদের আরও জানার প্রয়োজন রয়েছে। তারা যত জানবেন তত তথ্য জনগণকে দিতে পারবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.