সৌদি আরবে গিয়ে ভিক্ষা করে মুচলেকা দেওয়া মন্টু আবারও বেঁচে নিলেন একই পথ। বিস্তারিত (ভিডিওসহ)

বাংলাদেশের প্রচলিত আইনে ভিক্ষা একটি সামাজিক সমস্যা ও অপরাধ । এর পরও কিন্তু ভিক্ষাবৃত্তি থেমে নেই, উল্টো এটা এখন পরিণত হয়েছে লাভজনক বাণিজ্যে।

ভিক্ষাবৃত্তি বা ভিক্ষুকদের নিয়ে মুখরোচক অনেক আলোচনা ও খবর গণমাধ্যমে প্রায়ই প্রকাশ পায়। অনেকে আবার নিজের সামর্থ্য থাকা অবস্থাতে এই কাজে জড়িয়ে পড়ে।

কথায় আছে, ঢেঁকি স্বর্গে গেলেও ধান ভানে! যার যেটা স্বভাব তা কোনো অবস্হাতেই পরিবর্তন হয় না। সম্প্রতি এ ঘটনা ঘটেছে সৌদি আরবে হজ করতে যাওয়া মতিয়ার রহমান মন্টু নামের এক হাজীর আচরণে।

তিনি নাম মাত্র হজে যান কিন্তু সেখানে গিয়ে ভিক্ষা করেন। গতমাসে সৌদি আরবে হজ করতে গিয়ে ভিক্ষা করে কোটিপতি বনে গেছেন মেহেরপুর জেলার এক সময়ের কুখ্যাত ডাকাত মতিয়ার রহমান মন্টু।

হজের নামে সৌদি আরবে গিয়ে ভিক্ষা করার সময় সে ওই দেশের পুলিশের হাতে আটক হন। এ সংবাদ দেশে-বিদেশে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রচারিত হলে বিষয়টি ব্যাপকভাবে আলোচিত হয়। এরপর মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পান তিনি।

মূলত হজ করতে নয়, হজের নামে সৌদিতে গিয়ে ভিক্ষা করাই ছিল তার পেশা। সেখানে গিয়ে ভিক্ষা করে আয় করেন লাখ লাখ টাকা। হজ থেকে ফিরে নিজের গ্রামে কিনতেন জমি। তার বসতঘরের অবস্থা ভালো না হলেও কৃষিজমি রয়েছে প্রায় ২০ বিঘা।

অপরদিকে হজ শেষে হাজিরা যখন দেশে ফেরায় ব্যস্ত সময় পার করছেন ঠিক তখন আবারও মদিনার রাস্তায় ভিক্ষা করতে দেখা যায় আলোচিত মতিয়ার রহমানকে। তার পুনরায় এই ভিক্ষা করার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক ভাইরাল হয়েছে!

ভিডিওতে দেখা যায়, হাজির পোশাক পরে ভিক্ষা করছেন মতিয়ার। ভিডিও ধারণকারী ব্যক্তি তাকে প্রশ্ন করেন, আপনি আবারও ভিক্ষা করছেন? এর আগেও আপনি ভিক্ষা করতে গিয়ে আটক হয়েছিলেন। কেন আপনি এ ঘৃণিত কাজ করছেন।

আমাদের দেশের নাম খারাপ করছেন? এমন ঘটনা দেশের জন্য খুবই লজ্জার। তবে ভিডিও ধারনকারী ব্যক্তির কথার উত্তরে মতিয়ার বলেন, আমি কয়েকদিন ভিক্ষা করি নাই। আমার ফ্লাইট ২৭ তারিক তাই এই কয়টা দিন ভিক্ষা করে তার পর যাবো।
ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.