অটো চাপা পড়ে মারা গেলেন বিএনপি নেতা

রাজনীতি: বুধবার দুপুরে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চাপায় মারা গেলেন বরিশাল নগরীর ২৭নং ওয়ার্ডের

সাবেক কাউন্সিলর মহানগর বিএনপির সদস্যে গিয়াস উদ্দিন বাবুল মোল্লা (৫৫)। বুধবার দুপুরে নগরীর জর্ডন রোডে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে

কোতয়ালী মডেল থানার পরিদর্শক লোকমান হোসেন জানিয়েছেন। জনা গেছে, গিয়াস উদ্দিন বাবুল মোল্লা নগরীর ২৭নং ওয়ার্ডের মোল্লা বাড়ির মৃত আকরাম মোল্লার ছেলে।

পরিদর্শক লোকমান হোসেন জানান, জর্ডন রোডে একটি ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা তাকে চাপা দেয়। তাকে উদ্ধার করে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে

নেওয়ার পর চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব ও নগরীর ১৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মীর জাহিদুল কবির জানান,

জর্ডন রোডের দালালনির্ভর একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে। একটি অটোতে দালালরা রোগী নিয়ে আসে নিউরো মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. অমিতাভ সরকারকে দেখানোর জন্য। কিন্তু অমিতাভ সরকার ওই ডায়াগনস্টিক সেন্টারে কখনোই বসেন না। তখন বাবুল মোল্লা তাদের চ্যালেঞ্জ করে পুলিশে ফোন দেন। এ সময় অটোচালক পালানোর চেষ্টা করেন। বাবুল মোল্লা অটো টেনে ধরেন। এতে অটো উল্টে তার নিচে চাপা পড়ে। পরে বাবুল মোল্লাকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের ভাই কামাল হোসেন বলেন, আমার বাসা জর্ডন রোডে। বাবুলকে বাসায় আসতে বলেছিলাম একটা কাজের জন্য। আমার বাসার সামনে আসার পর একজন রোগী আমার ভাইয়ের কাছে ডা. অমিতাভ সরকার কোথায় বসেন জানতে চান। এ সময় আমার ভাই তাকে জানান, অমিতাভ সরকার এখানে বসেন না, বিবির পুকুরপাড় বসেন। তখন ওই রোগী জানান, অটোচালক তাকে রুপাতলী থেকে এখানে নিয়ে এসেছেন। এরপর ওই অটোচালকের সঙ্গে আমার ভাইয়ের কথা কাটাকাটি হয়। পরে অটোচালক যে ফিজিওথেরাপি সেন্টারের সামনে রোগীকে এনেছিলেন, সেই সেন্টারের লোকজন আমার ভাইকে মারধর করেন। এরপর ধাক্কা মেরে রাস্তায় ফেলে দিলে রোগীর দালালের অটোর নিচে চাপা পড়ে। হাসপাতালের ওয়ার্ড মাস্টার আবুল কালাম বলেন, নিহতের লাশ মর্গে রাখা হয়েছে। তার মৃত্যুন হাসপাতালে আনার আগেই হয়েছে। কোতয়ালী মডেল থানার এসাই মেহেদী হাসান জানান, অটোচাপায় তিনি নিহত হয়েছেন। কিন্তু কীভাবে অটোর নিচে চাপা পড়েছেন সেটা তদন্ত করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.