ছাত্রলীগ নেতা হ’ত্যা, গ্রেপ্তার আ. লীগের ৩ আসামি!

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে ছাত্রলীগ নেতা হাসিবুল বাশার হাসিবের হত্যাকাণ্ডের প্রধান আসামি মো. হাসানসহ আরো তিন আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এ সময় তাদের কাছ থেকে একটি এলজি, দুটি কিরিজ ও একটি লোহার রড জব্দ করা হয়। ঘটনায় এ পর্যন্ত পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

সোমবার দুপুর গ্রেপ্তারকৃতদের বিচারিক আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর আগে রবিবার দিবাগত রাতে ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলার বারাহি গোবিন্দ এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- মহবুল্লাহপুর গ্রামের মৃত আবু মিয়ার ছেলে হাসান (৩১), হাসানের ভাতিজা ও মিন্টুর ছেলে জয় (২১) এবং তিতাহাজেরা গ্রামের মৃত আবু তাহেরের ছেলে রুবেল (৩৪)।

বেগমগঞ্জ থানার ওসি মীর জাহিদুল হক রনি জানান, গ্রেপ্তারকৃত তিনজন স্থানীয় আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তারা বিভিন্ন সময় দলের নেতাদের নাম ভাঙিয়ে সন্ত্রাসী কার্যক্রম করে। নিজেদের মধ্যে দলীয় আধিপত্য ও কোন্দলের জেরে

ছাত্রলীগ নেতা হাসিবুল বাশার হাসিবকে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী কুপিয়ে এবং জবাই করে হত্যা করে। গ্রেপ্তারকৃত তিন আসামি প্রাথমিকভাবে স্বীকার করেছে তারা তাদের সোর্স রুবেলের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে গত কয়েকদিন ধরে হাসিবুল বাশারের গতিবিধি

পর্যবেক্ষণ করে এবং ঘটনার দিন রুবেলের তথ্যের ভিত্তিতে হাসিবুলের মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে তুলে নিয়ে গিয়ে হত্যা করে। তিনি আরো জানান, হত্যাকাণ্ডের পর হত্যায় ব্যবহৃত অস্ত্রগুলো ঘটনাস্থলের পার্শ্ববর্তী গজারিয়া খালে ফেলে দেয় তারা। ওই খাল থেকে দুটি কিরিজ ও একটি লোহার রড উদ্ধার করা হয়েছে।

৭ জুলাই (বৃহস্পতিবার) দুপুরে হাসানের নেতৃত্বে মাসুম, মিন্টু, জয়, জাহিদসহ কয়েকজন অস্ত্রধারি হাসিবুলের মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে তাকে তুলে নিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ও গলা কেটে জখম করে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক হাসিবুলকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনায় নিহতের চাচা সিরাজ মিয়া বাদী হয়ে ১১ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরো ১০-১৫ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.