আমার জন্য আমিই ত্যাগ করেছি, কিসের ইঙ্গিত দিলেন শবনম ফারিয়া

কোরবানির ঈদ মানেই ত্যাগের মহিমায় উদ্ভাসিত হওয়ার সময়। প্রায় প্রতিটি মানুষের উঠে দাঁড়ানোর পেছনে কেউ না কেউ ছায়া হয়ে থাকে।

যে ছায়ায় হেঁটে জীবনে আসে সাফল্য। তারকাজীবনে সেই পেছনের মানুষের ত্যাগ নিয়েই আমার কাছে ত্যাগের গল্প শুনতে চাওয়া হয়েছে! যারা আমার ক্যারিয়ারে বিশেষ ত্যাগ করেছেন,

তাদের গল্প। তবে সেভাবে ধরতে গেলে আমার জন্য বিশেষ কেউ কিছু ত্যাগ করেনি। কারণ, আমার পরিবারের কেউই চাইতেন না আমি মিডিয়াতে কাজ করি। বরং আমিই আমার জন্য অনেক স্যাক্রিফাইস করেছি।যে বয়সে বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দেওয়ার কথা,

হ্যাং-আউট করার কথা, সে বয়সে আমি তা করতে পারিনি। সকাল আটটায় ভার্সিটির জন্য বের হয়ে যেতাম। সেটা শেষ করেই ছুটতাম শুটিংয়ে। শেষ হতে হতে রাত ১১টা। বাসায় ফিরে ফ্রেশ হয়ে পরের দিনের শুটিংয়ের ব্যাগ গোছাতে হতো। সেটা করতে করতে বাজতো রাত ৩টা।এরপর আবার ছুট।

অনেকে পড়াশোনা শেষ করে কাজে যুক্ত হন। অভিনয়ের সেই সুযোগ ছিল না। আমার জীবনে পড়াশোনা ও শুটিং একসঙ্গে করতে হয়েছে। তাই একটা সময় বন্ধুরাও কোনও আড্ডাতে আমার নাম রাখতো না। কারণ, তারা জানে আমি উপস্থিত হতে পারবো না।

তবে এর বাইরে যদি কারও নাম বলতে হয়, তবে সেটা আমার মা। তিনি আমার প্রতি বিশেষ খেয়াল রাখতেন। ব্যাগ গোছাতে সাহায্যসহ আমার প্রয়োজনীয় সবকিছু তিনি মনে রাখতেন। এখনও করে যাচ্ছেন। তার জন্যই হয়তো সবকিছু সামলে কাজ করতে পেরেছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.