শিনজো আবে’কে মৃত ঘোষণা করতে যে কারণে এত বিলম্ব

আধুনিক জাপানের সবচেয়ে প্রভাবশালী নেতাদের অন্যতম সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে’র মৃত্যুতে কাঁদছে পুরো দেশ। এমনকি তাকে যারা জানেন,

চেনেন বাকি বিশ্বের এমন সব মানুষও শোকে স্তম্ভিত। গতকাল শুক্রবার নির্বাচনী প্রচারণা চালানোর সময় পিছন থেকে গুলি করে তাকে হত্যা করা হয়।

ওই সময়ই তার মধ্যে জীবনের কোনো লক্ষণ অবশিষ্ট ছিল না বলে জানিয়েছিলেন দায়িত্বশীলরা। তারপরও তাকে বাঁচানোর আপ্রাণ চেষ্টা চালান চিকিৎসরা। কমপক্ষে ২০ জন বিশেষজ্ঞ চার ঘন্টা

‘যুদ্ধ’ করেন তাকে বাঁচানোর। ওই টিমের একজন চিকিৎসক বলেছেন, আমরা আপ্রাণ লড়াই করেও তাকে বাঁচাতে পারি নি। এ খবর দিয়েছে অনলাইন এনএইচকে। ঘটনার

একেবারে শুরুতে শিনজো আবে’র শরীরে প্রাণের কোনো স্পন্দন না থাকায় বোঝা গিয়েছিল তিনি মারা গেছেন। তবে রাষ্ট্রীয়ভাবে ঘোষণা আসতে বেশ বিলম্ব হয়।

এ সময়ে চিকিৎসকরা শেষ চেষ্টা করেন। কিন্তু তারা হেরে যান। আগামীকাল রোববার সেখানে পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষের নির্বাচন। এ উপলক্ষে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রার্থীদের পক্ষে প্রচারণা চালাচ্ছিলেন আবে।

নারা শহরে স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে এগারটার দিকে প্রচারণায় বক্তব্য দিতে দাঁড়ালে পিছন থেকে তাকে গুলি করা হয়। দুটি গুলি। এতে সঙ্গে সঙ্গে তিনি মাটিতে চিৎ হয়ে পড়ে যান। তার শরীরে প্রচÐ রক্তক্ষরণ হয়। ঘটনাস্থল থেকে আটক করা হয়েছে হামলাকারী ইয়ামাগামি টেতসুইয়াকে (৪১)। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সূত্র নিশ্চিত করেছেন যে, সে জাপানের নৌবাহিনীতে তিন বছর দায়িত্ব পালন করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.