একই সময় বন্যা হচ্ছে কুড়িগ্রাম এবং সিলেটে! কুড়িগ্রামের জন্য কেন কারো মাথা ব্যথা নেই?

সংবাদ: পাহাড়ি ঢল আর অতি ভারী বৃষ্টির কারণে বন্যা হয়েছেদেশের বিভিন্ন জায়গায়। তবে

সিলেট ও কুড়িগ্রামে বন্যার ভয়াবহ ছিল ব্যাপক। যেখানে পানিবন্দি রয়েছে লাখো মানুষ। তবে সিলেট বন্যা দুর্গত এলাকায় পানিবন্দি

লোকজনকে উদ্ধারে সেনাবাহিনী ও নৌবাহিনী তৎপর রয়েছে তাছাড়াও বিভিন্ন সংগঠন ও সাধারন মানুষও ব্যাপক ভাবে সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে কিন্তু কুড়িগ্রামে ঠিক তার

উল্টো দেখা যাচ্ছে। ভয়াবহ বন্যায় কুড়িগ্রামের মানুষ পানিবন্দি হলেও তাদের পাশে সেরকম ভাবে দাঁড়াতে দেখা যায়নি কাউকে। এই নিয়ে নেটিজেনরা ব্যাপক ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন স্ট্যাটাস দিয়েছেন। তেমনি একজন লিখেছেন…

একই সময় বন্যা হচ্ছে কুড়িগ্রাম এবং সিলেটে! দেশের সবচেয়ে দরিদ্র জেলা কুড়িগ্রামের বন্যা নিয়ে যেন কারও কোন মাথাব্যথাই নেই। যে হাহাকার আজ দেশবাসী সিলেটের জন্য করছে, আমার জেলা কুড়িগ্রামের জন্য কেনো হয় না? কেনো আমার জেলার ৮০% প্রতিবছর পানির নিচে

থাকার পরেও সমাধান হয় না? লক্ষ লক্ষ মানুষ সবকিছু হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে যায়। ক্ষতি হয় ৯৯% আবাদি জমির। এমনি এমনি কুড়িগ্রাম দেশের সবচেয়ে দরিদ্র জেলা না! প্রতিবছর বন্যা এবং নদীভাঙ্গনের জন্যই কুড়িগ্রামের এই অবস্থা! তবুও এরা বাঁচতে জানে, ভেলায় ভেসে কিংবা রাস্তায় তাবু টাঙ্গিয়ে। নেই কোন আশ্রয় নেওয়ার জন্য ৪/৫ তলা স্কুল বা আশ্রয়কেন্দ্র। আমরা সহানুভূতি পাইছি মন্দা আর মফিজ এলাকা হিসাবেই। আবারও বাড়ছে কুড়িগ্রামের বন্যার পানি। ফুঁসে উঠছে ব্রহ্মপুত্র, ধরলাসহ ১৬ নদীর পানির লেয়ার। জানি, আমাদের স্থায়ী সমাধান নামমাত্র ত্রাণ আর সামান্য মিডিয়া কাভারেজ। তবে একটা জিনিস, এখানে আমরা শিখেছি যে কেউ ৪০,০০০৳ টাকা একটা নৌকার জন্য চায় না। সবাই সবার জন্য বুক পেতে রাখে। মন্দা আর মফিজ ত্যাগ নিয়ে এভাবেই আমরা ভালো আছি।”

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

Leave a Reply

Your email address will not be published.