ধোঁয়াশা দূর করলেন আইভী

রাজনীতি: নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে আদমজী খাল খনন এবং সৌন্দর্য্য বর্ধন নিয়ে আইভী সমালোচকরা দীর্ঘদিন ধরে একটি বিতর্ক তৈরি করার চেষ্টা করছিল।

বিশেষ করে সর্বশেষ নির্বাচনে মেয়র আইভী খালের সৌন্দর্য্য বর্ধনের নামে সরকারি টাকা অপচয় করছেন এমন বিতর্ক তৈরির চেষ্টা চালায় প্রতিপক্ষরা। সেসময় এই বিষয়টি সরাসরি খোলাসা না করলেও

এবার বিষয়টি পরিষ্কার করে সবাইকে জানিয়ে দিয়েছেন মেয়র আইভী। সোমবার (৪ জুলাই) দুপুরে নগরীর আলী আহাম্মদ চুনকা নগর পাঠাগার ও মিলনায়তনে পরিবেশের উপর

আয়োজিত এক গণশুনানি অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্য প্রদানকালে তিনি বিষয়টি পরিষ্কার করেন। মেয়র আইভী আদমজী খাল প্রসঙ্গে বলেন, ‘আমি ওয়ার্ড ব্যাংকের সহযোগীতায় নিতাইগঞ্জ খাল,

বাবুরাইল খাল এবং শেখ রাসেল পার্ক তৈরি করেছি। অনেকেই বলেছে, ২০০ কোটি টাকা দিয়ে আইভী কেন বিশুদ্ধ বাতাস খাওয়াবে? এখানে হাতিরঝিল না, মতিঝিলের মত বিল্ডিং বানাতে হবে।

আমি প্রতিবাদ করে বলেছি, প্রয়োজনে ৫০০ কোটি টাকা ব্যয় করে হলেও নগরবাসীকে বিশুদ্ধ বাতাস খাওয়াবো। এবং সেই কাজটি আমি করে দেখিয়েছি। এই কাজগুলোতে সফল হবার পরেই আমি আদমজী খালে হাত দিয়েছি। শেখ রাসেল পার্ক করতে গিয়ে আমাদের ঠিকাদারকে জেলে যেতে হয়েছে। এই পার্কে বড় বস্তি ছিল। যেখানে মাদক আর অবৈধ কার্যক্রম চলতো। আমি তাদের উচ্ছেদ করেছি সত্য, কিন্তু আমি সেখানে বিল্ডিং বানাই নাই। আমি এই নগরবাসীকে পার্ক বানিয়ে দিয়েছি। সেটা আপনারা সবই জানেন। আদমজী খাল করতে যাওয়ার পর সড়ক ও জনপথ (সওজ) আমাকে বাধা দিলো। তারা বললো সেই খাল ভরাট করে তারা ডাবল লেন তৈরি করবে। আমি একটি মিটিং এ মাননীয় মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাহেবের কাছ থেকে রেজুলেশন নিয়ে তারপর সেই খালটি খনন করি। জাইকার সহয়তা নিয়ে অনেক সুন্দর করে খালটি বাঁধাই করা হয়েছে।’

তার এই বক্তব্যের মধ্য দিয়ে তিনি পরিষ্কার করেন যে সড়ক ও সেতু মন্ত্রীর কাছ থেকে অনুমতি নিয়েই তিনি খালের প্রকল্পে হাত দিয়েছেন। আগামীতে এই খাল ভরাট করে সড়ক সম্প্রসারণের কোন সুযোগ রাখেননি তিনি। এতে করে যেমন বেঁচে যাবে শতবর্ষী এই খাল, তেমনি সিদ্ধিরগঞ্জের মানুষ পাবে নির্মল আলো ও বাতাসের সান্নিধ্য। যেমনটা এই শহরের মানুষ নিতাইগঞ্জ খাল, বাবুরাইল খাল, শেখ রাসেল পার্ক এবং জল্লারপাড় লেকের মাধ্যমে পেয়ে থাকেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত নির্বাচনে মেয়র আইভীকে বিতর্কিত করার জন্য শামীম ওসমানের অনুসারী হিসেবে পরিচিত অনেকেই আদমজী খালের উপর নির্মানাধীন প্রকল্পের সমালোচনা করেন। সেসময় তারা বলার চেষ্টা করেন, সওজ এই খালের উপর দিয়ে ফোর লেন করতে চায়। সেই কাজ শুরু হলে নাসিক বর্তমানে যেই প্রকল্প চালাচ্ছে তা ভেঙ্গে ফেলা হবে। এতে করে বিপুল পরিমাণ অর্থ অপচয় হবে। বিষয়টি জেনেও আইভী কেবল প্রকল্পের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

অথচ এসব মন্তব্যের পেছনে জলজ্যান্ত সত্যকে লুকিয়ে রাখার চেষ্টা করা হয়। অন্যদিকে মেয়র আইভী যে মন্ত্রীর মাধ্যমে এই বিতর্কের সমাধান করেই প্রকল্পে হাত দিয়েছেন তা কাউকে জানতে দেয়া হয়নি। তবে মেয়র আইভী দীর্ঘদিন পর স্পষ্ট ভাবে বিষয়টি জানিয়ে দেয়ায় হাফ ছেড়ে বেঁচেছেন বাসিন্দারা। কারণ, চোখের সামনে গড়ে ওঠা দৃষ্টিনন্দন প্রকল্পের কাজ যদি পরবর্তিতে ভেঙ্গে ফেলা হতো তাহলে তা হতো দুঃখজনক। কিন্তু এখন মেয়রের এমন দূরদর্শী সিদ্ধান্তের প্রশংসা করছেন সবাই। একই সাথে দৃঢ় মনোবল নিয়ে যেন এই কাজ সম্পন্ন করেন সেই প্রত্যাশা রাখছেন সিদ্ধিরগঞ্জবাসী। সুত্রঃ দ্যা নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকম

Leave a Reply

Your email address will not be published.