ইভ্যালির গ্রাহকদের গণ-আ’ত্মহত্যার হু’মকি

গ্রাহকের প্রতারণা ও অর্থ আত্মসাতের মামলায় গ্রেফতার হয়েছেন ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির প্রধান নির্বাহী (সিইও) ও চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনকে। তাদেরকে গ্রেফতারের পর থেকেই মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ করছে ইভ্যালির গ্রাহকরা।

শনিবার রাসেল ও তার স্ত্রী শামীমা নাসরিনের মুক্তির দাবিতে ধানমন্ডিতে প্রতিষ্ঠানটির কার্যালয়ের সামনে এই বিক্ষোভ হয়। তাদের মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার কথা জানান গ্রাহকরা।বিক্ষোভে একজন গ্রাহক বলেন, আমরা রাসেলের মুক্তি চাই।

রাসেল ভাইকে সময় দিতে হবে। এইখানে মানুষের সর্বোচ্চটা দেওয়া আছে, যদি এইখানে বিচার করতে আসেন তাহলে আপনাদের সমাধান দিতে হবে, বলে দিতে হবে এই টাকা কিভাবে গ্রাহকরা পাবে। এই টাকা রাসেল ভাইকে সবাই দিয়েছে, রাসেল ভাই আশ্বস্ত করেছে সবাইকে টাকা দিবে।

এই টাকাটা সবাই কিভাবে পাবে সেটা এখনো কেউ বলতে পারে নাই। কিন্তু রাসেল ভাই বলেছে আমাদের টাকা ছয় মাসে ফেরত দিবে। এই টাকা যদি আগের ইতিহাসের মতো হয় তাহলে গণ-আত্মহত্যা হবে। আর এর জন্য দায় থাকবে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, আইসিটি মন্ত্রণালয় এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

গ্রাহকরা জানান, আমাদের টাকা কে দিবে? সরকার যদি টাকা ফেরত দেয় তাহলে রাসেলকে আটকে রাখুক, আর যদি টাকা ফেরত দিতে না পারে তাহেল রাসেলকে ছেড়ে দিক। সে সময় চেয়েছিল তাকে সময় দেওয়া হোক।গত বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) রাসেল ও

তার স্ত্রী শামীমা নাসরিনের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে গুলশান থানায় আরিফ বাকের নামে ইভ্যালির এক গ্রাহক মামলা করেন। মামলার পর বিকেলেই রাসেলকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব। শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে ঢাকা মহানগর হাকিম আতিকুল ইসলাম ইভ্যালির সিইও মো. রাসেল ও প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনকে তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।