আল্লাহকে ফিরে পেতে বলিউড ছাড়লেন যে অভিনেত্রী!

বাই বাই বলিউড!
ফেসবুক, ইন্সটাগ্রাম ও টুইটারে একটি দীর্ঘ পোস্ট দিয়ে ১৮ বছর বয়সি অভিনেত্রী জায়রা ওয়াসিম জানিয়েছেন তিনি অবিলম্বে বলিউডকে বিদায় জানাতে চলেছেন৷ নিজের কাজ নিয়ে তার অস্বস্তির কথা প্রসঙ্গে তিনি টেনে আনেন তার ধর্মবিশ্বাস ও

অভিনয়ের সাথে ধর্মের বিরোধের বিষয়টি৷‘ইমান’ বনাম জায়রা
সেই পোস্টে বারবার জায়রা ফিরে যান ‘ইমান’-এর সাথে তার কাজের দ্বন্দ্বের প্রশ্নে৷ জায়রার মতে, ‘‘কাজের ক্ষেত্রে বহুবার আমি এমন পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছি যেখানে আল্লাহর সাথে আমার সম্পর্ক ও সার্বিক ইমান প্রশ্নের মুখে পড়ে৷’’

কে এই জায়রা?
আমির খানের সাথে ‘দঙ্গল’ ছবিতে অভিনয় করে সাড়া ফেলে দেওয়া এই অভিনেত্রী কাশ্মীরের মেয়ে৷ ২০০ কোটি রুপিরও বেশি অর্থের ব্যবসা করা ‘দঙ্গল’ ছবিতে তরুণ কুস্তিগীরের ভূমিকায় অভিনয় তাকে এনে দেয় শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর জাতীয় পুরস্কার৷

বড়পর্দায় অন্য জায়রা
২০১৭ সালে ‘দা সিক্রেট সুপারস্টার’ ছবিতে এক গুজরাটি মুসলিম কিশোরীর ভূমিকায় অভিনয় করেন জায়রা৷ পর্দায় তুলে ধরেন রক্ষণশীল পিতার ইচ্ছার বিরুদ্ধে গায়িকা হবার স্বপ্ন দেখা চরিত্রকে৷

জায়রার বলিউড ছাড়ার সিদ্ধান্ত ঘোষণার পর থেকেই অনেকে প্রশ্ন তুলছেন, এই তথাকথিত ‘ধর্মবিরোধী’ ছবি চয়নের সময় কোথায় ছিল জায়রার ‘ইমান’?বিভক্ত সোশাল মিডিয়া জায়রা ওয়াসিমের পোস্ট নিয়ে ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে পক্ষে-বিপক্ষে ব্যাপক

আলোচনা৷অভিনেত্রী রবিনা ট্যান্ডনের মতো কেউ কেউ তার এই সিদ্ধান্তকে দেখছেন ‘বলিউডের প্রতি অকৃতজ্ঞতা’ হিসাবে৷ অন্যদিকে, কেউ কেউ এই পদক্ষেপকে দেখছেন এক তরুণীর ধার্মিক সততার নিদর্শন হিসাবে৷স্বেচ্ছায়, নাকি…বাংলাদেশি লেখিকা

তসলিমা নাসরিন জায়রা‘র অভিনয় থেকে স্বেচ্ছায় বিদায় নেওয়া সম্পর্কে বলেন, ‘‘বৈষম্যে ভরা পিতৃতান্ত্রিক সমাজ, যেখানে ধর্ম নারীকে দেখে পরাধীন, অশিক্ষিত সেবা-প্রদানকারী হিসাবে, সেই সমাজ ব্যবস্থায় নারীর স্বেচ্ছায় কোনো কিছুই করার নেই৷’’প্রাণহানির

ভয় এর আগে ২০১৬ সালে যখন ‘দঙ্গল’ ছবির জন্য মাথার চুল ছেঁটে ফেলেন জায়রা, তখন প্রথমবারের মতো তিনি সোশাল মিডিয়ায় ‘ট্রলিং’-এর শিকার হন৷ এরপর জম্মু ও কাশ্মীরের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতির সাথে দেখা করার ছবি তিনি

শেয়ার করলে প্রাণনাশের একাধিক হুমকি পান৷ এরপর জায়রা অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েন বলে জানা গেছে৷কোন ছকে বাঁধা এই সিদ্ধান্ত?বামপন্থি ছাত্র রাজনীতির ময়দান ছেড়ে মধ্যপন্থি রাজনীতি বেছে নেন কাশ্মীরের আরেক মেয়ে শেহলা রশিদ৷ ২০১৯ সালে

কাশ্মীরের উচ্চপদস্থ আমলা শাহ ফয়সালও চাকরি ছেড়ে রাজনীতিতে নামেন৷ অনেকে প্রশ্ন তুলছেন, তবে কি জায়রার এই প্রস্থান আসলে কাশ্মীরের তরুণদের মধ্যে বাড়ন্ত রাজনীতিতে আসার ‘ট্রেন্ড’-এর লক্ষণ?